সফর বয়কট করবেন স্মিথরা!

বৈশ্বিক ক্রীড়াঙ্গনে এখন দুটো টেনশন চলছে। নেইমার বার্সেলোনা ছেড়ে পিএসজিতে যাচ্ছেন কি যাচ্ছেন না, এ নিয়ে দুই রকম খবরই উড়ছে বাতাসে। তেমনি দোলাচল চলছে অস্ট্রেলিয়ার আসন্ন বাংলাদেশ সফরের ভাগ্য নিয়েও। আজ আশার আলো জ্বলছে তো কালই দপ করে নিভে যাচ্ছে তা। গত পরশুর খবরে আশার আলো জ্বললেও সবশেষ খবরে দপ করেই নিভতে বসেছে বাংলাদেশ সফরের সম্ভাবনা। প্রয়োজনে অন্তর্বর্তী একটি চুক্তি করেও নাকি বাংলাদেশ সফরে আসতে রাজি স্টিভেন স্মিথ। তবে দ্রুত এ ব্যাপারে মতৈক্য না হলে বাংলাদেশ সফর বয়কটের ঘোষণা দেবেন স্মিথরা, ‘দ্য অস্ট্রেলিয়ান’ পত্রিকার খবরটি এমনই আশঙ্কাজনক।

অথচ গত কয়েক দিনে ইতিবাচক বেশ কিছু ঘটনা ঘটেছে। বাংলাদেশ সফরের জন্য পূর্বঘোষিত ক্যাম্প শুরু হওয়ার কথা ১০ আগস্ট। ডারউইনের সে ক্যাম্প বাতিলের কোনো পূর্বাভাস এখনো মেলেনি। উল্টো, বাংলাদেশ সফরের জন্য ঘোষিত অস্ট্রেলিয়ার পুরো স্কোয়াড এখন সিডনিতে। যত দূর খবর, এ অনিশ্চয়তার মাঝেও যথাসময়ে ক্যাম্পে যোগ দেবেন বাংলাদেশ সফরে দুই টেস্টের সিরিজের জন্য ঘোষিত স্কোয়াডের সবাই। এ সপ্তাহের ক্যাম্প শেষে ১৮ আগস্ট বাংলাদেশের উদ্দেশে উড়াল দেওয়ার কথা স্টিভেন স্মিথদের। তবে বাংলাদেশে রওনা হওয়ার এক সপ্তাহ আগেও যদি সিএর সঙ্গে সমঝোতা না হয়, তাহলে সফর বয়কটের সিদ্ধান্ত নেবেন দেশটির ক্রিকেটাররা। সিডনিতে গোপন ভোটাভুটিতে নাকি এমন সিদ্ধান্তের পক্ষে একজোট হয়েছেন স্মিথরা। ‘দ্য অস্ট্রেলিয়ান’ পত্রিকার এ খবর উড়িয়ে দেওয়ারও উপায় নেই। ঠিক একই পদ্ধতিতে এ মাসের শুরুতে দক্ষিণ আফ্রিকা সফর বাতিল করেছিল অস্ট্রেলিয়া ‘এ’ দলও।

সিডনিতে গতকালের সম্মেলনের উপলক্ষ ছিল অবশ্য সিএর সঙ্গে ক্রিকেটার্স অ্যাসোসিয়েশন অব অস্ট্রেলিয়ার (এসিএ) দ্বিপক্ষীয় আলোচনার আপডেট জানা। এ সভায় বাংলাদেশ সফর নিয়ে ইতিবাচক আলোচনাও হয়েছে। এ সভাতেই নাকি এসিএর প্রধান নির্বাহী অ্যালিস্টার নিকলসনকে স্মিথ ও তাঁর ডেপুটি ডেভিড ওয়ার্নার অনুরোধ করেছেন যেন অন্তর্বর্তী একটি চুক্তি করে হলেও বাংলাদেশের ফ্লাইট ধরতে পারেন তাঁরা— এমন খবর প্রকাশিত হয়েছে গতকালের ‘দ্য অস্ট্রেলিয়ান’ পত্রিকায়। একই পদ্ধতিতে অস্ট্রেলিয়ার নারী ক্রিকেট দল অংশ নিয়েছে বিশ্বকাপে।

বেতন-ভাতা নিয়ে বিরোধের জেরে ২ জুলাই থেকে বেকার অস্ট্রেলিয়ার শীর্ষ ২৩০ ক্রিকেটার। সেদিন থেকে আশা-নিরাশার দোলাচলে স্মিথদের বাংলাদেশ, ভারত এবং দেশের মাটিতে অনুষ্ঠেয় অ্যাশেজ সিরিজও। বিরোধের শুরুতে দুই পক্ষ দুই মেরুতে অবস্থান নিলেও পরবর্তী সময়ে দফায় দফায় আলোচনায় বসেছেন সিএর প্রধান নির্বাহী জেমস সাদারল্যান্ড ও এসিএর প্রধান নির্বাহী অ্যালিস্টার নিকলসন। সবশেষ গত পরশু চার ঘণ্টাব্যাপী আলোচনার পর দুজনের অভিব্যক্তি দেখে মনে হচ্ছিল, বুঝি দমবন্ধ করা পরিবেশে সমঝোতার অক্সিজেন ছড়িয়েছে। সিডনিতে এসিএর সঙ্গে আলাপকালে স্মিথ-ওয়ার্নারদের ‘অনুরোধ’ অবশ্যই স্বস্তির বাংলাদেশের জন্য। তবে সঙ্গে জুড়ে দেওয়া শর্তটা চরম অস্বস্তিকর।

সে কারণেই প্রস্তুতি ক্যাম্পই সফরের নিশ্চয়তা নয়, অন্তত অস্ট্রেলিয়ার বর্তমান ক্রিকেট বাস্তবতায়। দক্ষিণ আফ্রিকা সফরের জন্য প্রস্তুতি ক্যাম্প করেছিল অস্ট্রেলিয়া ‘এ’ দলও। কিন্তু বেতন-ভাতা সংক্রান্ত জটিলতায় সে সফর বাতিল করে এসিএ। তাই ডারউইনের ক্যাম্প শেষ করেই ঢাকার ফ্লাইট ধরবেন— সে নিশ্চয়তা এখনো মেলেনি। আশার কথা একটাই যে, দুই পক্ষের দফায় দফায় আলোচনা চলছে। আর বাংলাদেশ সফরের জন্য প্রয়োজনে খণ্ডকালীন কোনো চুক্তিতেও রাজি অস্ট্রেলিয়ার ক্রিকেটাররা। যদিও এ প্রস্তাব এখনো ওঠেনি ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার টেবিলে। আর প্রস্তাব পেলেই রাজি হবে সিএ—সে নিশ্চয়তাও নেই। আয় বণ্টনের পুরনো পন্থায় ক্রিকেটারদের বেতন-ভাতা প্রদানে যে রাজিই নয় ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া। তৃণমূলে ক্রিকেট বিস্তারের জন্য আয় বণ্টননীতি বাদ দিয়ে ক্রিকেটারদের নির্দিষ্ট অঙ্কের বেতনের প্রস্তাব করেছিল সিএ। সে প্রস্তাবে রাজি না হয়ে চুক্তিপত্রে স্বাক্ষর করেননি স্মিথসহ অস্ট্রেলিয়ার ২৩০ ক্রিকেটার। সম্প্রতি এসিএর পক্ষ থেকে তৃণমূলের জন্য ২৪ মিলিয়ন ডলার বরাদ্দ রেখেই আয় বণ্টনের প্রস্তাব দেওয়া হয়েছিল সিএ-কে। কিন্তু এ প্রস্তাবেও সায় দেয়নি সিএ। আয় বণ্টননীতির পথে আর হাঁটতেই চাচ্ছে না দেশটির ক্রিকেট প্রশাসক সংস্থাটি।

ভিডিওটি দেখতে নিচে ক্লিক করুণ

Loading...

তাই এখনো গেরো খোলেনি অস্ট্রেলিয়ার ক্রিকেটের। বাংলাদেশে তাদের দুই টেস্টের সিরিজের সম্ভাবনাও তাই ঝুলছে সুতায়। দ্য অস্ট্রেলিয়ান

সফর বয়কট করব ন স ম থর ! সফর বয়কট করবেন স্মিথরা!
Loading...
Previous: বৃষ্টি-বন্যায় ডুবেছে চট্টগ্রাম ঢাকায় দুর্ভোগ চরমে
Next: এবার বিস্ফোরিত হল শাওমি হ্যান্ডসেট

About Kuy@s@News

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*